‘তরে ইয়নসন’ এর “লাতিন ভাষার কথা” জানবো ‘জি এইচ হাবীব’ এর অনুবাদে

‘তরে ইয়নসন’ এর “লাতিন ভাষার কথা” জানবো ‘জি এইচ হাবীব’ এর অনুবাদে
ইন্দো ইউরোপীয় ভাষাবংশে লাতিন ভাষা প্রাচীন ঐশ্বর্যময় ভাষা বলে বিবেচিত। এই ভাষা থেকে সময়ের বিবর্তনে তৈরি হয়েছে অনেক ইউরোপীয় ভাষা। লাতিন বাষার বহু শব্দ পরিবর্তিত অবস্থায় আধুনিক ইউরোপীয় ভাষায় প্রতিনিয়ত ব্যবহৃত হচ্ছে। বলা হয় যে এই ভাষা মারা গেছে। কিন্তু সত্যি কথা হল বিশাল শব্দভাণ্ডার, ভাষাভঙ্গী ও ব্যাকরণের বিভিন্ন প্রসঙ্গে লাতিন ভাষা এখনও বেঁচে আছে। এই অন্তঃসলীলা প্রাচীন ভাষা সম্পর্কে বাংলা ভাষায় সহজবোধ্য ও সহজসাধ্য বই ‘জি এইচ হাবীব’ অনুদিত ‘তরে ইয়নসন' রচিত “লাতিন ভাষার কথা”।

প্রথাগত ইতিহাস বই এটা নয়। ‘অনুবাদকের কথা'য় অনুবাদক স্বীকার করেছেন তরে ইয়নসন লিখিত মূল 'A Natural History of Latin’ বইয়ের শুধু প্রথম দুটি পর্ব (Latin and Romans, Latin and Europe) বাংলায় রূপান্তর করা হয়েছে। অনুবাদক জানান
মূল সুইডিশ বইটির (Latin: Kulturen, historien, spraket) ইংরেজি অনুবাদ ও অ্যাডাপ্টেশন ( A Natural History of Latin) পড়ে খুব ভালো লেগেছিল। সেই ভালো-লাগা পাঠকের সঙ্গে ভাগ করে নিতে চেয়েছি তো বটেই, যদিও জানি এ-দেশে লাতিন ভাষা অনুরাগী বাংলাভাষী পাঠক-ক্রেতা করগণ্য। পৃষ্ঠা- ৯
বাংলা ভাষায় লাতিন ভাষার উপর এরকম আকর্ষণীয় বই আর আছে কী না সন্দেহ। এর সূচিপত্র দেখলেই বিষয়টি পরিষ্কার হবে।

  • সূচিপত্র
  • প্রথম পর্ব লাতিন ও রোমকরা
  • লিঙ্গুয়া লাতিনা: প্রাথমিক পরিচয়
  • রোমের আদিকাল
  • লাতিন যেভাবে লাতিন হলো
  • ছোটো এক নগর থেকে বিশাল ক্ষমতার দিকে
  • কতটা খারাপ ছিল রোমকরা?
  • প্রাচীন রোম থেকে ভেসে আসা স্বর
  • গ্রীসের সঙ্গে সাক্ষাৎ
  • জনগণের জন্য থিয়েটার
  • বিপ্লবের কাল
  • লেখা, পড়া, শোনা, ও বলা
  • বক্তৃতা, রাজনীতি ও বিচার
  • সিসেরো আর বক্তৃতা বা অলংকারশাস্ত্র
  • ইতিহাসের ভাষা
  • ইম্পেরিয়াম রোমানাম: অগাস্টাস ও রোমক সাম্রাজ্য
  • নাম ও বংশ বা পরিবার
  • বছর ও মাস
  • লাতিন হয়ে উঠল ইউরোপের ভাষা
  • কাব্য ও কবিকুল
  • দর্শন: লুক্রিশাস, সিসেরো, ও সেনেকা
  • বিদ্যালয় ও কুইন্তিলিয়ান
  • জ্ঞান-বিজ্ঞান
  • দৈনন্দিন জীবনের ভাষা
  • আইন ও আইনের ভাষা
  • তাসিতাস, সম্রাটগণ, ও ব্রিটেন
  • খৃষ্টধর্ম: বিপজ্জনক সম্প্রদায় থেকে রাষ্ট্রধর্ম
  • দ্বিতীয় পর্ব লাতিন ও ইউরোপ
  • রোমপরবর্তী ইউরোপ
  • লাতিন থেকে রোমান্স ভাষাসমূহ
  • ধর্মপ্রচারকবৃন্দ, লাতিন, ও বিদেশী ভাষাসমূহ
  • ব্রিটেনে লাতিন
  • বিদ্যালয়ে লাতিন
  • বাচন ও বানান
  • গ্রন্থাবলি ও লিপিকরবৃন্দ
  • সন্তবৃন্দ ও ধর্মদ্রোহীগণ
  • ঐতিহ্যের অভিভাবকবৃন্দ
  • প্রাচীনকালপরবর্তী কাব্য
  • এবেলার্ড ও ইলোইযা
  • চিন্তকবৃন্দ
  • রেনেসাঁ
  • চিকিৎসকবৃন্দ ও তাঁদের ভাষা
  • লিনীয়াস ও লাতিন
  • পদার্থবিদ, রসায়নবিদ, ও অন্যরা
  • কিমিয়া, ডাকিনীবিদ্যা, ও হ্যারি পটার
  • ধার-নেয়া শব্দসকল ও নব্যশব্দাবলি
  • লাতিন ও জার্মান
  • লাতিন ও ফরাসি
  • লাতিন ও ইংরেজি
  • লাতিন ও আমরা
  • পরিশিষ্ট
  • প্রচলিত লাতিন শব্দবন্ধ

সূচিপত্র পাঠে বোঝা যায় লাতিন ভাষার বিভিন্ন তথ্যমূলক প্রসঙ্গে বইটি বেশ সমৃদ্ধ। এই বই অনেকটা জীবনীগ্রন্থের মত। লাতিন ভাষার জন্মসময় থেকে শুরু করেছেন লেখক। বিভিন্ন উদাহরণ দিয়ে এগিয়ে চলেন পাতার পর পাতায়। লেখকের অনবদ্য বর্ণনাভঙ্গী পাঠককের মনোযোগ ধরে রাখে। এক অমোঘ আকর্ষণ বইটি শেষ করার জন্য বারবার তাগাদা দেয়।

ভাষা ব্যবহৃত হয় পারিবারিক জীবনে, বাইরের কর্মক্ষেত্রে, রাজনীতিতে, অর্থনীতিতে, শিক্ষায়, সাহিত্যে, সঙ্গীতে। এই প্রসঙ্গগুলো লাতিন ভাষার ইতিহাস বিবরণে লেখক একটু একটু করে ছুঁয়ে গেছেন। জীবনের প্রায় প্রতিটি অধ্যায় লেখকের দৃষ্টি এড়ায় নি।

পাশের রাজ্য গ্রীস অঞ্চল আগে থেকেই উন্নত ছিল। ভাষার লিখিত রূপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে রোমানদের সাথে গ্রীকদের আচরণে বিশাল পার্থক্য ছিল।

রোমকদের হয়তো অনেক আগে থেকেই বর্ণমালা ছিল, কিন্তু সেটা তারা নানান চুক্তিপত্র, আইন-কানুন, ও সমাধিফলকের গায়ে উৎকীর্ণ লিপি ছাড়া অন্য কোনো কাজে ব্যবহার করেনি বললেই চলে। এবার তাদের জানার সুযোগ হলো যে ওসব ছাড়াও লেখ্য ভাষাকে শিল্পের নানান সৃজনশীল কাজে ও স্রেফ পড়ার আনন্দের কাজেই ব্যবহার করা যায়। পৃষ্ঠা- ৩৮

বইটির যে বৈশিষ্ট্য আমার সবচেয়ে ভাল লেগেছে, তা হল লেখকের সমাজবিজ্ঞানের প্রতি নিষ্ঠা। আড়াই হাজার বৎসরের সমাজ বিকাশের ধাপগুলো ভাষার মাধ্যমে কীভাবে প্রতিফলিত হয়েছে তা এই বই না পড়লে বোঝা যাবে না।

বইয়ের আকার মোটা হলেও আয়তনে ছোট। দৈর্ঘ্যে ৭.১ ও প্রস্থে ৪.১ ইঞ্চি। অর্থাৎ ভ্রমণসঙ্গী হিসেবে সহজে বহনযোগ্য। কয়েক ঘন্টার দীর্ঘ যাত্রায় এই বই অনায়াসে ভ্রমণসঙ্গী হতে পারে।

আমার হাতের বইটি সুলভ শ্রেণীর। উন্নতমানের ঝকঝকে দাগহীন নিউজপ্রিন্ট কাগজে ছাপানোর মান ভাল। কাগজ ধবধবে সাদা না হওয়ায় চোখের উপরে চাপ কম পড়ে। গাঢ় কাল রঙের কালিতে প্রতিটি বর্ণ স্পষ্ট দেখা যায়। ফন্টের আকার যথাযথ। কোন কোন প্রকাশনী নিজেদের প্রকাশিত বইতে ফন্টের আকার অপ্রয়োজনে বড় করে পৃষ্ঠা সংখ্যা বাড়ায়। ফলে বইয়ের দাম বাড়ে। প্রকৃতি-পরিচয় প্রকাশনী সেরকমের নয় বলেই আমার ধারণা। তাদের প্রকাশিত আরও কয়েকটি বই গ্রন্থগত ওয়েবসাইটে আলোচনা করা হয়েছে। তারা ভাল মানের বই প্রকাশ করে। “লাতিন ভাষার কথা” বইয়ের প্রচ্ছদ আকর্ষণীয়। ল্যাটিন ভাষার বর্ণ দিয়ে সাজানো পুরনো পুঁথি'র রঙে রাঙানো প্রচ্ছদটি যথার্থ হয়েছে।

অনুবাদ ভাল হয়েছে। জি এইচ হাবীব অনুবাদে সিদ্ধহস্ত। তার ভাষা সরল, আকর্ষণীয়, সুখপাঠ্য। পাঠক পড়তে গিয়ে কোথাও হোঁচট খাবেন না। অনুবাদকের নিজস্ব একটা সাবলীল গতি পাঠককে বইয়ের পাতায় নিমগ্ন করে রাখবে।

বাঙালী পাঠক পরিণত হোক। লাটিন ভাষার ইতিহাস জানতে “লাতিন ভাষার কথা” বই সকলের সহায়ক হবে এই প্রত্যাশা করি।

-0-0-0-0-0-0-0-0-0-0-0-0-0-0-

লাতিন ভাষার কথা
তরে ইয়নসন

অনুবাদঃ জি এইচ হাবীব

প্রচ্ছদঃ নির্ঝর নৈঃশব্দ
প্রকাশকঃ প্রকৃতি পরিচয়, ঢাকা।
প্রকাশকালঃ ২০১৬
পৃষ্ঠাঃ ২৮৮
মূল্যঃ সুলভ: ৩২০ টাকা, শোভন: ৪০০ টাকা
ISBN:  978-984-34-0349-0

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করার পূর্বে মন্তব্যর নীতিমালা সম্পাদকের স্বীকারোক্তি পাঠ আবশ্যক। ইচ্ছে করলে ই-মেইল করতে পারেন।