স্যাম চাচাকে লেখা মান্টোর চিঠি | অনুবাদ: সালেহ ফুয়াদ

স্যাম চাচাকে লেখা মান্টোর চিঠি | অনুবাদ: সালেহ ফুয়াদ


বিশ্বমোড়ল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের খবরদারি প্রতিষ্ঠান ইউনাইটেড স্টেট ইনফরমেশন সার্ভিস। একদিন লাহোর অফিসের এক কর্তা মিস্টার স্মিথ মান্টোর ডেরায় এসে প্রস্তাব দিলেন তাদের ম্যাগাজিনে তিনি যেন কিছু লেখা দেন। প্রতিটি লেখার দক্ষিণা পাঁচশো রুপি। মান্টো দুশোর বেশি নেবেন না। ঝুলোঝুলির পর রফা হল তিনশো রুপিতে। মান্টো তাঁর লেখায় গ্রহণ করলেন চিঠির ফর্ম৷ কোনও এক স্যাম চাচাকে সম্বোধন করে লেখা সেই চিঠি । পুরো নাম স্যামুয়েল উইলসন, মোড়ক-দেওয়া মাংস বিক্রেতা৷ বিশ্বযুদ্ধ তাকে বিখ্যাত করে তোলে৷

মান্টো প্রথম যে-লেখাটি মার্কিন দপ্তরে নিয়ে গেলেন, ওই চিঠিতে মান্টো মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের মুখোশ উন্মোচন করেছেন। দেখিয়েছেন তথাকথিত সভ্যতার আড়ালে দাঁত-নখ বের-করা এক বীভৎস রূপ৷ স্যাম চাচা হয়ে যায় মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের প্রতীক৷ এরপর মান্টো তাকে আরও আটটি চিঠি লেখেন৷ কী বলা যাবে একে? পাগলামি, না ত্যাড়ামি? চরম দারিদ্র্যের মধ্যেও নিজের শিল্পীসত্তাকে মরতে না দিতে ক-জন পারেন!

স্যাম চাচাকে লেখা মান্টোর চিঠি
মূল: সাদত হাসান মান্টো
অনুবাদ: সালেহ ফুয়াদ
প্রচ্ছদ: ধ্রুব এষ
প্রকাশক: ঐতিহ্য, ঢাকা।
দাম: ১৫০ টাকা

প্রাপ্তিস্থান: প্যাভিলিয়ান ৬, অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯
সোহরওয়ার্দী উদ্যান, রমনা, ঢাকা

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করার পূর্বে মন্তব্যর নীতিমালা সম্পাদকের স্বীকারোক্তি পাঠ আবশ্যক। ইচ্ছে করলে ই-মেইল করতে পারেন।