সাহিত্যের ছোট কাগজ 'মৃৎ' | সম্পাদক: সুলতান মাহমুদ রতন

মৃৎ | সম্পাদক: সুলতান মাহমুদ রতন

বাংলা ভাষার এই সময়ের সাহিত্যের ছোট কাগজগুলোর মধ্যে 'মৃৎ' তার নিজস্ব রুচি এবং শক্তি নিয়ে প্রকাশিত হচ্ছে। মৃৎ এর ফাল্গুন সংখ্যা একগুচ্ছ সমৃদ্ধ লেখা নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে।  মৃৎ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ রতন তার সম্পাদকের বয়ানের এক জায়গায় লেখেন,
বিতর্ক আছে পাঠাভ্যাস কমে যাচ্ছে। সামাজিক মাধ্যমগুলোর সস্তা স্ট্যাটাস, লাইক, কমেন্টে মজে থাকতে চায় অধিক মানুষ। তারপর জীবনে ব্যস্ততা বেড়েছে, বেড়েছে ভোগের সামগ্রী, পাশাপাশি বেড়েছে বিচিত্র আকাঙ্ক্ষাও। এসময়ে এজাতীয় সাহিত্য পত্রিকার আবেদন কতটুকু। তাছাড়া যে কবিতায় কেবল শব্দের কসরত আর দুর্বোধ্যতার প্রাচীর বা যে গল্পে নেই গল্পের বালাই, ভাষার চাতুর্যে ঠাসা তাই বা পাঠকের জন্য কতটুকু উপাদেয়। পাঠকের মান নিয়েও প্রশ্ন তোলেন কেউ কেউ। জানি এসব বিতর্কের ভেতর রসিকজন তার অমৃত খুঁজে পেতে ব্যাকুল। মধুকর যেমন রসের আড়ত খুঁজে পায়।
এরকম ভাবনার জায়গা থেকেই হয়তো পাঠকের সামনে বিবিধ লেখার একটা গভীর অঙ্গীকার নিয়ে মলাট বন্দি হয়ে মৃৎ হাজির হয়। মৃৎ এর এই সংখ্যায় শব্দের ব্যবহার নিয়ে প্রবন্ধ লিখেছেন পবিত্র সরকার। তার রসগ্রাহী ভাষা প্রবন্ধ বিষয়ে যাদের কাঠখোট্টা ধারণার অরুচি আছে তাদের জন্য হয়তো আরামদায়ক এবং আগ্রহের হবে। বাংলাভাষার কিংবদন্তী লেখক হুমায়ূন আহমেদের ছোট গল্প নিয়ে আলোচনা করেছেন মোজাফফ্‌র হোসেন। সালেহ মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ লিখেছেন গুরুবাদ বা ভক্তিবাদের সঙ্গে ব্যক্তি চিন্তার টালবাহানা প্রসঙ্গে। অমর মিত্রের গল্প দেশ ভাগের ক্ষতের গন্ধে ভরা এক স্মৃতিভাষ্য। সঙ্গে মিজানুর রহমান, আনোয়ার শাহাদাত, বাবুল ভঞ্জ চৌধুরী এবং প্রশান্ত কুমার সরকারের গল্পে সমকালীন ব্যবস্থা এবং সংখ্যালঘুর মনস্তত্ত্বের পাশাপাশি ব্যক্তি জীবনের যন্ত্রণার কাহনে বন্দি হয়েছে পাতাগুলো। বিকাশমান পূঁজির এইসময়ে কোণঠাসা হয়ে আসা ব্যক্তি মননের গোপন অলিগলির থেকে উঠে আসা যন্ত্রণা যা তাকে আত্মহত্যা করায়। সেই ঘুলঘুলি দিয়ে নেমে আসা দীর্ঘশ্বাসের সঙ্গে হেরে যাওয়া মানুষদের নিয়ে নাটক লিখেছেন রোমেল রহমান। অগ্রজ কবি মশিরুজ্জামানসহ কবিতা অংশকে সমৃদ্ধ করেছেন লুৎফুন নাহার বুলবুল, সরদার ফারুক, অলক চক্রবর্তী, রাসেল রায়হান, সালাহউদ্দিন ফিরদাউস, সুলতান মাহমুদ রতন। বিশ্বাস ভিন্ন স্বাদের ভিন্ন অনুভবের কবিতা যাদের কাছে মনে হয় আশ্রয় এই কবিতাগুলো তাদের কাছে আরাধ্য হবে। ফারহিম ভীনার ঝরঝরে গতিস্মান বাক্যে এগিয়ে গেছে ভ্রমন কাহিনী। লন্ডনকে এক নতুন দৃশ্যভাষ্যের মধ্যে দিয়ে আমরা আবিষ্কার করি এই ভ্রমন কাহিনীর মধ্যে দিয়ে। কবিতার মতো বর্ননার মধ্যে দিয়ে স্পষ্ট হয় আমাদের দেখা না দেখা সেইসব ছবি গুলো। গ্রন্থ আলোচনায়, বিভূতিভূষণ মণ্ডল ‘দুই বাংলার নির্বাচিত গল্পে দেশভাগ’ গ্রন্থের আলোচনা দিয়ে পত্রিকাটির শেষ রচনায় যোগ করেছেন একটা পুরাতন দায়। পত্রিকাটি টানটান বৈচিত্রের একটি সংগ্রহ হয়ে পাঠকের রুচিতে যোগ হবে।

সূচীপত্র 

  • প্রবন্ধ: পবিত্র সরকার। কোন্‌ কথা কখন, কোথায়, মোজাফফ্‌র হোসেন। যে পথে অনন্য হুমায়ূন, সালেহ মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ। ব্যক্তিস্তুতির যৎসামান্য
  • নাটক: রোমেল রহমান। কয়েকজন বিপন্ন মানুষ। 
  • গল্প: অমর মিত্র । রিফিউজি মিজানুর রহমান, একদল সুদর্শন । আনোয়ার শাহাদাত । কদমফুলতলীর হাট। বাবলু ভঞ্জ চৌধুরী। ফালো, প্রশান্ত সরকার। গঙ্গারামের ভিডিও মোবাইল   
  • ভ্রমণ কাহিনী: ফারহিম ভীনা। শীত এসেছে ফারকোট পরে 
  • কবিতা: মশিরুজ্জামান, লুৎফুন নাহার বুলবুল, সরদার ফারুক, অলক চক্রবর্তী, রাসেল রায়হান, সালাহউদ্দিন ফিরদাউস, সুলতান মাহমুদ রতন।
  • গ্রন্থ সমালোচনা: বিভূতিভূষণ মণ্ডল। ভাঙাবাংলার কান্না


মৃৎ
সম্পাদক: সুলতান মাহমুদ রতন
প্রচ্ছদ: সব্যসাচী হাজরা
১৬০ পৃষ্ঠার ম্যাগাজিনটির মূল্য: ১০০ টাকা
পত্রিকাটি পাওয়া যাবে: পাঠক সমাবেশ, ঢাকা। দীপনপুর, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা। বাতিঘর, জামাল খান রোড, চট্টগ্রাম। বুক সেন্টার, সেনাদিঘির মোড়, রাজশাহী। পড়ুয়া, ইউনুস মার্কেট টেম্পল রোড, বগুড়া। বইপত্র, রাজা ম্যানশন, জিন্দাবাজার, সিলেট। মৃত্তিকা, আহসান আহমেদ রোড, খুলনা। অভিযান, ১০/২ এ রামনাথ মজুমদার স্ট্রিট, কোলকাতা ৯, ভারত।

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করার পূর্বে মন্তব্যর নীতিমালা সম্পাদকের স্বীকারোক্তি পাঠ আবশ্যক। ইচ্ছে করলে ই-মেইল করতে পারেন।