কবি ‘জাফর সাদেক’ এর কাব্যগ্রন্থ “দম-যোগিনীর তাল” - জীবনের গভীরতম উপলব্ধির নান্দনিক প্রতিচ্ছবিঃ কমলকলি চৌধুরী

কবি ‘জাফর সাদেক’ এর কাব্যগ্রন্থ “দম-যোগিনীর তাল”

কমলকলি চৌধুরী
 
মানবের যা‌পিত জীবনই ক‌বিতার জন্মদাতা। ঘটনাপ্রবাহ যখন ক‌বিম‌ন‌কে অা‌ন্দো‌লিত ক‌রে, তখনই জন্ম নেয় এক এক‌টি ক‌বিতা, যা হ‌তে পা‌রে আবেগ‌কে‌ন্দ্রিক, অনুভূ‌তির মায়াজাল, ভা‌লোবাসার চিত্র, সমকা‌লের প্রবাহবার্তা, প্র‌তিবাদ, দর্শন ইত্যা‌দি বিষয়বস্তু নি‌য়ে। কবিতা মানুষের মন‌কে ভাবায়, জাগায়, আনন্দ দেয়, স‌চেতনতা বৃ‌দ্ধি ক‌রে, ন্যা‌য়ের হ‌য়ে অন্যা‌য়ের বিরু‌দ্ধে কথা ব‌লে, স‌ত্যের প‌থ দেখায়, সা‌র্বিকভা‌বে মানু‌ষের কল্যাণ ক‌রে।
এ‌রিস্টটল ব‌লে‌ছেন, ক‌বিতা তাই যা ইতিহা‌সের চে‌য়ে বড় দর্শ‌নের চে‌য়ে বেশি কিছু। ক‌বিতা ইতিহাস‌কে সাক্ষী রে‌খে বর্তমান‌কে ‌বি‌বেচনা ক‌রে ভ‌বিষ্য‌তের দর্শনের প্র‌য়োগ করে যায় বলেই ক‌বিতা ইতিহাস আর দর্শ‌নের চে‌য়ে বড়।
আল-নোমানের প্রচ্ছদে অনুপ্রাণন প্রকাশন থেকে ডিসেম্বর ২০১৮-তে প্রকাশিত যায়ীদ আব্দুল্লাহকে উৎসর্গীকৃত বায়াত্তরটি কবিতা সংবলিত কবি জাফর সাদেকের পাঁচফর্মার কাব্যগ্রন্থ 'দম-যোগিনীর তাল' আমাকে একটি বিশাল উদ্যানের সামনে দাঁড় করিয়ে দেয়। নিজের ভেতরে যেন আবিষ্কার করি ফরাসি ইতিহাসবেত্তা ফার্নান্দ ব্রোদেলকে। কোনো কবিতাকে পরিমাপ করার, ব্যাখ্যা করার, অনুধাবন করার প্রচলিত যে দৃষ্টিকোণ- যা আমার মধ্যে বিরাজ করছিল, তা আমূল পরিবর্তিত হতে থাকে। আলোচ্য গ্রন্থের কবিতাগুলোর সাথে সম্পর্কিত ইতিহাসের প্রান্তগুলো আমাকে ছুঁয়ে দিতে থাকে অবিরাম। কখনও কখনও বিশ্বসাহিত্যের নানা ঘটনাপ্রবাহের ঘাত-প্রতিঘাত, মানবমনে সদাজাগ্রত সরল প্রতিদ্বন্দ্বিতার টানাপড়েন, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া, দ্রোহ আর বিপ্লব যেন যুগপৎ সংঘটিত হচ্ছিলো আমার বোধের ভেতরে আর আমি বদলে যাচ্ছিলাম ধীরেধীরে।
পুঁজির ভ্রমণ শেষে ইতিহাসের প্রেসনোট
তারপর দিয়ে গেছো ভৃত্যের সাজ
ভৃত্যের পিরান যতই টুটাফুটা হোক
পকেট কিন্তু অভিজাত
অনেকটা নদীর মতো ক্ষুধা বহমান স্বাধীন
তবে মৃত্যুটা নদীর মতো মোহনীয় নয়
আহা সমুদ্র, নদী হলে মৃত্যুকে দিতে স্বাধীন সঙ্গম
পিরানের বোতামঘরগুলো যেনো রাজপ্রাসাদের একাকী খিলান
রাতে ঘুঙুর নিক্কন, খিলানে দাঁড়ায় ঝাঁসির বাঈ
তেপান্তর বালুচর, কোথাও কেউ নেই
খুলে রেখেছি বোতামঘর, ভোরের প্রহরা এখানো বহুদূর
জাগিয়ে রেখেছি তোমার আনন্দ-আশ্রম
জাগ্রত ক্ষুধার ইঙ্গিতে থাকে আশ্রয়
(বোতাম-ঘর; পৃষ্ঠা: ৭৩)
কবিতা শুধু সৃজনশীল শিল্পমাত্র নয়, যা পাঠ করে পাঠক শুধু আনন্দের সরোবরে অবগাহন করবেন। কবিতা একইসঙ্গে আনন্দ আর মানবিক চিৎপ্রকর্ষের পরিশীলিত প্রকাশ। তাই শুধুই সমকালীন পরিস্থিতি নয়, এর সৃজনী-বৈশিষ্ট্যে অন্তর্লীন হয়ে থাকবে দীর্ঘকালের মানবসমাজের বিবর্তনের বিমূর্ত রেখা।

ফরাসি দার্শনিক পিয়েরে বরদিউ যেমন সাহিত্যবিশ্বের কথা বলেছিলেন, যে বিশ্ব তার ভাবনা অনুসারে প্রতিদিনের বিশ্বের তুলনায় নিরপেক্ষ। আর এই সাহিত্যবিশ্বের সীমা, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ছড়িয়ে পড়ার পরিসর কখনোই সাধারণ রাজনীতি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় না।
ওষ্ঠপুটে রাখো না প্রতিশ্রুতি আর
চুম্বনের ফাঁকফোকর গলে বেরিয়ে যায়
না জন্মানো কিছু যাযাবর ভ্রুণ
এই শহর ডেকেছিলো কতকাল আগে
চেতনার পিঠে ছিলো শীতের বিকেল
চোখ ছিলো খোলা পিঞ্জর, ইচ্ছেঘরে মেঘের মৈথুন
একদিন, মনে হলো পুরো শহর ছোট ছোট মজমা আড়াল
এই বৃত্তে বিষদাঁতহীন সাপ, করছি শুধু ফোঁসফোঁস
ও বেদেবউ বাতরক্ত কতটা জমেছে তোমার শিঙ্গায়
একদিন গ্রীষ্মের দুপুর পিঠে নিয়ে ছেড়েছি
তোমার জখমি কোলাহল
সাথে বেদেকন্যা, গলায় জড়িয়ে আছি অভুক্ত বিষদাঁত
সাপডালায় বেদেনী নিয়েছে শহরের সব কৃষ্ণচূড়া ফুল
(অভুক্ত বিষদাঁত; পৃষ্ঠা: ৬২)
তোমার শহর তেলআবিবের সড়কে তখন
মরুর দুখুচাঁদ, যেন বেকারির কিশোর নজরুল
অনাথাশ্রমে তখন মাতৃস্তন পানরত নয়, অনেক শিশুই
নাইট ক্লাবের দুয়ারে দাঁড়িয়ে পূর্ণায়ু অনেক প্রেমিক
ও অসমাপ্ত মানুষের দল
তুমি বেরিয়ে এলে -- থমকে গেলো তেলআবিব কাঁপন
বিবৃতি দিলে -- 'তুমি বিষ নও, নারী বিষ নয়'
কাঙ্ক্ষিত আশ্বাসে সরব হলো শহর -- ড্রাম নিলো বিট
ক্যাসিনোর কিছু নারী প্রতিটি অঙ্গ খুলে খুলে রাখলো
রাতের পানপাত্রে
অপস্রিয়মাণ ওষ্ঠের কিনার ছুঁয়ে
পানে পানে কিছু প্রেমিক অপূর্ণাঙ্গ মানুষ, আর কেউ
মানুষ হওয়ার চেষ্টায়... রাত কাঁপলো আবার
বিবৃতির পুরস্কারস্বরূপ কিছুদিন -- কসমেটিক অ্যান্ড
প্লাস্টিক সার্জনদের প্রচারদূত
ভোগ ম্যাগাজিনে ছোট্ট খবর
তোমার স্তনবৃন্তে কামড়ে বরং এক সাপের মৃত্যু
কী সাংঘাতিক, ফ্যাশন জগতে তুলেছিলো তোলপাড়
ওগো ইসরাইলি সুপার মডেল -- ওরিট ফক্স
(সিলিকোন জেল ও ইসরাইল; পৃষ্ঠা: ৬৩)
সাহিত্যের ক্ষেত্রেও একধরনের আধিপত্যবাদ কাজ করে, বিশ্বসাহিত্যের কথা ভাবলে এবিষয়টি আমাদের মেনে নিতেই হবে। তবে এই আধিপত্যের বিষয়টি কখনোই রাজনৈতিক আধিপত্যবাদের সাথে তুলনীয় নয়। পাঠকের রুচি আর হৃদয়ের কাছেই এর যত আবেদন। নিজের লেখার উৎকর্ষ ছাড়া অন্য কোনো অস্ত্র দিয়ে পাঠককে পদানত করার ক্ষমতা কোনো কবিসাহিত্যিকের নেই। ষোড়শ শতকের একজন শেকসপিয়র যখন ঐতিহাসিক পুরাতাত্ত্বিক ঘটনা নিয়ে নাটক লিখে বিশ্বপাঠকের কাছে সমাদৃত হন, একইভাবে সমাদৃত হন সমকালীন ঘটনাপ্রবাহের রূপদানকারী বিশ শতকের কৃষ্ণাঙ্গ ঔপন্যাসিক চিনুয়া আচেবে। তাঁদের লেখার উৎকৃষ্টতাই এর মূল কারণ। কবি জাফর সাদেকের কবিতাও আমার অজ্ঞাতেই আমাকে তেমনি এক আধিপত্যে আকণ্ঠ পান করে ফেলে।
মুখমণ্ডল ঘেরা ছিলো লাল সাদা অনেক গোলাপ
পুরো শরীর ঢাকা ছিলো সফেদ সাদা কাপড়ে
ঘুমন্ত সে, যে-ঘুমে আর শোনা হয় না পাখির ডাক
কী নাম তার, শরীরে কষ্টের পিরান রাখে না রাত
নগ্নবুকে খুদিত রক্তে জানতে পারি তার নাম
ঐ ফুলেল গোলাপ শিশুটির নাম -- সিরিয়া
কবিতার ঘোরলাগা প্রহরের কুয়াশায় ঘরে ফিরলে
বাবা বলতেন -- সন্তান হলে বুঝবে উৎকণ্ঠা সবচে'
বড়ব্যাধি এই তমসার নিদ্রাহীন চোখে
আচ্ছা সিরিয়া নামের ফুলেল ঘুমন্ত শিশুটির
বাবার নাম জানো কি তোমরা কেউ
... ... ... ... ... ... ...
আমি কিন্তু জানি ওর বাবার নাম
ওই ঘুমন্ত শিশুটির বাবার নাম আমার আদিপিতার
ওই ঘুমন্ত ফুলেল শিশুটির পিতা আমার বাবা
ওই স্বর্গীয় শিশুটির কে পিতা, লেখা আমার নাম
আসলে ঘুমন্ত শিশুটির পিতা পৃথিবীর সব বাবাই
মৃত্যুর শীতল মুখের পিতা, পৃথিবীর সব বাবাই
হে শিশুটির বীর্যপিতা তোমার কাঁধে এক পৃথিবী ভার
আমরা কেবল শোকগাথা লিখে যাচ্ছি
আমরা কেবল বাতাসের শূন্যতা পূরণে অনুভব করি বাতাসের বেগ
কবিতার অক্ষর কেবল এঁকে যায় লক্ষ বাবার ছবি
(সিরিয়া ও একজন বাবা; পৃষ্ঠা: ৭২)
প্রত্যেক শিল্পী বা কবির কর্মেই প্রকৃতিপ্রভাব বা প্রকৃতিচেতনা থাকে, কারণ মানুষ প্রকৃতিরই একটি অংশ। কবি জাফর সাদেকের কবিতায়ও তা এসেছে, এসেছে নতুনতর দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে, এসেছে তাঁর সূক্ষ্ম বাস্তবতাবোধ, গভীর হৃদয়াবেগ এবং অজানা শোকের আবহ থেকে -- যা পাঠককে ক্ষণেক্ষণে মুগ্ধতার পরশ বুলিয়ে যাবে।
বাতাসে নিঃশ্বাস, জীবন দয়িতা, নীলতিমির ভাসতে হয়
প্রভুত্ববাদ তুলেছে পাল, বন্দর ঢাকছে না উদোম নাচ
বাতাস পালাক্রমে ডেকে আনে ফাগুন কোকিল
বসন্ত ভাবায় প্রকৃতি কেন আমৃত্যু বাঁঁচবার ফুল
(আমৃত্যু-রেখা; পৃষ্ঠা: ২১)
প্রতিটি ঝড়ের পর আমবাগানে এখন বৃষ্টিমানুষ নেই
প্রতিটি শুক্লপক্ষ বিষাদ-পরশে হারায় কৃষ্ণপক্ষে
... ... ... ... ... ... ... ...
আপন মানুষের কাছে আমরা চাই যাজক-পাহাড়
আপন মানুষের কাছে হতে চাই একই নদী-স্রোত
নদী জানে মোহনা ভুল ঠিকানা নয়
(মা তাঁর নৈঃশব্দ্য উঠোনে; পৃষ্ঠা: ৩৭)
আমার এমন প্রশ্নে সরব প্রকৃতি থেমে গেলো চারদিক
টর্নেডো ধেয়ে আসার আগে শূন্যতায় পড়া নৈঃশব্দ্য
অথচ এতক্ষণ পাহাড়ি নির্জনে আফ্রিকান টিউলিপে বসে
ভালোই গাইছিলো বসন্তের কোকিল
(সিরিয়া ও একজন বাবা; পৃষ্ঠা: ৭২)
শীতের আশ্রয় -- ভুবনচিলের ডানায়
শীতের পানীয় -- কুয়াশা দল
... ... ... ...
শীতের নিঃশ্বাস -- গৃহের দুয়ারে শান্ত ভোর
শীতের জ্যোতিষ -- আগামী বসন্ত
বলে দিতে পারে
শীতালয়ে ঘুম-রমণী কোনো এক ফাগুনে
খুঁজে নেবে কোন পথে ফুটেছে কাঁপন শিমুল
(শীত সহজ বচন; পৃষ্ঠা: ৭৯)
জেনেছি প্রথম চাঁদের জন্মের কুষ্ঠী পেতে
তরুণী-জোছনা পসরা সাজিয়ে অপেক্ষা করবে
সেই জাগ্রত প্রণয় কক্ষে যেখানে মাতৃত্বকালীন ছুটিতে
রাত্রিই কেবল ধরে রেখেছে সনাতন ডিগ্রির প্রতি বিশ্বাস
আর থিসিসের অপূর্ণ ক্ষুধায় চাঁদ যেন
বধির সনদে গম্ভীর অধ্যাপকের স্বাক্ষর
(অভিসন্দর্ভ ও বুদ্ধপূর্ণিমা; পৃষ্ঠা: ৩৯)
প্রায় সকল কবির মধ্যেই এক বিবাগি মন বাস করে, বাস করে ছন্নছাড়া এক মায়াবী ফকির -- যা কবিকে প্রকৃতির পানে টানে, টানে প্রেমময় এক অসীম শূন্যতার পানে, যে টান কবির অন্তরের উপলব্ধিকে সদা জাগ্রত রাখে।
আমাদের এই বিলম্বিত যাত্রাপথে
পারাপার মায়া -- জানো কি কেউ, কে পাড়ে আছে বসে
নদীর ঢেউয়ে উর্বশী বিকেল
কেউ কি জানো কেন ওর এতো মায়া -- নিজের ছায়ায়
নদীর যে তখন প্রসবী সময়
দানবও চায় বেদনার নীলাভ শরীরে রাখে, মমতার হাত
সহজ সমর্পণে আনো রঙধনুর আনত শরীর
ওই একাকিনীর কাছে গ্রহণে আমি নিষিদ্ধ বাউল
এক সিদ্ধিময় চাঁদনি রাতে সে নদীতে শতখণ্ড দ্বীপ
সেই একখণ্ড দ্বীপে পা রেখে বলেছিলাম -- আসো
সহমরণের ঝাঁঝে গড়িয়ে নেই আমাদের নদীবেলা
তলিয়ে দেই বিলম্বিত অনুশোচনা
(নিষিদ্ধ বাউল; পৃষ্ঠা: ৫৩)
প্রথমবার ঘর ছাড়লাম, ডাক দম-যোগিনীর আখড়ায়
আল্লার দরগার এই সন্ন্যাসিনী নৃত্যে হাসে, দেহে ভাবায়
কলকির দমে দমে বলে -- আমিই আল্লাহ্‌
আমরাও তার সাথে দমে বলি -- তুই আল্লাহ্‌, তুই আল্লাহ্‌
... ... ... ... ... ... ...
দ্বিতীয়বার ছাড়লাম ঘর
অন্নপূর্ণায় পৌঁছে, হা তাকিয়ে আছি এভারেস্ট চুম্বনে
আহা একাকিত্ব কতবড় ঐশ্বর্য জানে ওই মহান সন্ন্যাস
(দম-যোগিনীর তাল; পৃষ্ঠা: ২০)
গ্রন্থের প্রতিটি কবিতাই আলাদা আলোচনার দাবি রাখে, প্রতিটি কবিতাই অসাধারণ সব চিত্রকল্প আর উপমার অনন্যতায় আমাদের কল্পনাকে সুদূরপ্রসারী আর চিন্তাকে শাণিত করে তোলে।
গ্রন্থটিতে একটি বিষয় ভীষণ চোখে পড়ার মতো, তা হলো যতিচিহ্নের অপ্রয়োগ। 'পিরিচ বউয়ের সেপারেশন মামলা' এবং গ্রন্থের শেষ কবিতা 'নিবিড় মিশ্রণ' ছাড়া আর কোনো কবিতায় সেমিকোলন, দাড়ি, আশ্চর্যবোধক বা প্রশ্নবোধক জাতীয় কোনো যতিচিহ্ন ব্যবহৃত হয়নি। শুধু কবিতার চরণের মাঝে প্রয়োজনে 'কমা' ব্যবহৃত হয়েছে। এর কারণ হতে পারে -- কবি পাঠকদের নিরঙ্কুশ স্বাধীনতা দিতে চেয়েছেন। পাঠক কোনো চরণ পড়ে বিস্মিত হতে পারেন, কোনো চরণ তার মনে প্রশ্নবোধক চিহ্ন এঁকে দিতে পারে, কোনো চরণের শেষে ইচ্ছে হলে পাঠক থামতে পারেন --সবকিছুই পাঠকের ইচ্ছাধীন, কবি এর নিয়ন্ত্রণভার গ্রহণ করেননি, তাঁর কবিতাকে পাঠকের উপলব্ধির কাছে মুক্ত করে দিয়েছেন, চেয়েছেন পাঠকেরা কবিতার হাত ধরে হেঁটে যাক, ভিজে যাক, ভেসে যাক, উড়ুক আপন ইচ্ছায় অসীম আকাশে।
কবিতার উর্বর স্রোতে হাত ধরে হেঁটে যাবো
ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল --
পালতোলা নৌকায় ভেসে যাবো মেঘের বাড়ি
খেজুর-গুড়ে ছাতু খেতে খেতে বৃষ্টি বিলাসে উড়ে যাবো…
-o-o-o-o-o-o-o-o-

দম-যোগিনীর তাল
জাফর সাদেক

প্রচ্ছদ: আল-নোমান

প্রকাশক: অনুপ্রাণন প্রকাশন, ঢাকা।
প্রকাশকাল: ডিসেম্বর ২০১৮
পৃষ্ঠাসংখ্যা: ৮০
মূল্য: ১৭৫ টাকা
ISBN: 978-984-93739-9-5

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করার পূর্বে মন্তব্যর নীতিমালা সম্পাদকের স্বীকারোক্তি পাঠ আবশ্যক। ইচ্ছে হলে ই-মেইল করুন।