বিশ শতকের প্রতীচ্য সাহিত্য ও সমালোচনাতত্ত্ব - সংকলন, সম্পাদনা ও ভূমিকাঃ বেগম আকতার কামাল

বিশ শতকের প্রতীচ্য সাহিত্য ও সমালোচনাতত্ত্ব - সংকলন, সম্পাদনা ও ভূমিকাঃ বেগম আকতার কামাল
সাহিত্য বা শিল্প সৃষ্টি, রচনা, নির্মাণ বা এর আলোচনা সমালোচনা বিশ্লেষণ পর্যবেক্ষণ জাতীয় কার্যক্রমের সাথে যারা জড়িত তাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বই “বিশ শতকের প্রতীচ্য সাহিত্য ও সমালোচনাতত্ত্ব”। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রথিতযশা অধ্যাপক বেগম আকতার কামাল এই বইটি সংকলন ও সম্পাদনা করে সাহিত্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের অশেষ প্রশংসাভাজন হয়েছেন।

সাহিত্য কি? এর স্বরূপ কিরকম? সাহিত্যের সংজ্ঞা কী, সাহিত্যতত্ত্বের বিভিন্ন ইজমগুলো কী কী, তাদের ব্যাখ্যা ও প্রকারভেদ কিরূপ --- এরকম বিভিন্ন প্রশ্ন সাহিত্যের প্রত্যেক পাঠককে নিরন্তর আঘাত করে। কেউ অন্যদের মতের প্রেক্ষিতে নিজের অবস্থান তৈরি করেন, কেউবা স্বকপোলকল্পিত মনোভঙ্গি থেকে সাহিত্যের সংজ্ঞায়ন করেন। এই দুই প্রকারের পাঠককে আজকের আলোচ্য বইটি অবশ্যই পাঠ করা উচিত। এখানে মোট চব্বিশটি প্রবন্ধে সাহিত্যের বিভিন্ন তত্ত্ব প্রসঙ্গে পণ্ডিতগণের মতামত পাই। পরিশিষ্ট ১ ও ২ এ রয়েছে কয়েকটি আধুনিকতাবাদী শিল্প ও সাহিত্য আন্দোলনের ইশতেহার।

পরিবর্তিত সময় ও সমাজের প্রেক্ষিতে সাহিত্য পাল্টায়। নদীর মত বহমান সাহিত্য প্রত্যেক দশকে সৃষ্টিশীল নতুন চিন্তা উপহার দেয়। কোন সমাজ তার মর্ম বোঝে কোন সমাজ বোঝে না। তাই এই সব নতুন চিন্তাগুলোর স্ফূরণ সাধারণত বিদেশেই ঘটে। অনুর্বর বাংলাদেশীদের তাই বিদেশী তত্ত্বের জন্য অপেক্ষা করে থাকা ছাড়া উপায় থাকে না। যতদিন বিদেশীদের নতুন চিন্তা বা ইজম আমাদের দৃষ্টিগোচর হয় না, ততদিন আত্মপ্রশংসা ও আস্ফালন চলতে থাকে। এদিক দিয়ে অধ্যাপক মহোদয় সাহিত্যিক, সমালোচক ও পাঠক মহলের প্রভূত উপকার করেছেন।

সাহিত্যতত্ত্ব বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই বইয়ের সারমর্ম অনুধাবন করতে হলে সূচিপত্র পাঠ আবশ্যক।

সূচিপত্রঃ
  • প্রকরণবাদী সাহিত্যতত্ত্ব - আফজালুল বাসার
  • ভাষাভিত্তিক সাহিত্য-সমালোচনাতত্ত্ব - মঈন চৌধুরী
  • নিউ ক্রিটিসিজম: তত্ত্বসমীক্ষা - বেগম আকতার কামাল
  • মার্কসীয় নন্দন ও সাহিত্যতত্ত্ব - খোন্দকার আশরাফ হোসেন
  • মার্কসবাদী সাহিত্যবীক্ষা, মনোবিজ্ঞান ও শরৎসাহিত্য - যতীন সরকার
  • মনঃসমীক্ষাবাদী সাহিত্যতত্ত্ব - খোন্দকার আশরাফ হোসেন
  • অস্তিত্ববাদ ও কবিতা: রবীন্দ্রকাব্যের প্রেক্ষাপট - গালিব আহসান খান
  • জ্যাঁ-পল সার্তের অস্তিত্ববাদী সাহিত্যভাবনা ও চাঁদের অমাবস্যা - সৌভিক রেজা
  • অ্যাবসার্ডবাদ ও সাহিত্যে তার প্রয়োগ – বিশ্বজিৎ ঘোষ
  • ইম্পিরিয়ালিজম থেকে পোস্টকলোনিয়ালিজম - আমীনুর রহমান
  • উত্তর-উপনিবেশবাদী সাহিত্যতত্ত্ব – মাসুদুজ্জামান
  • উত্তর উপনিবেশবাদ: অপরতাবোধ ও বিভূতিভূষণের ছোটগল্প – সৈয়দ আজিজুল হক
  • নারীবাদী তত্ত্ব ও মতিজানের মেয়েরা - রাশিদা আখতার খানম
  • নারীবাদী সাহিত্যতত্ত্ব, লুপ্ত অতলান্তিক ও ভবিষ্যৎ বিনির্মাণ – অদিতি ফাল্গুনী
  • অবয়ববাদী ও উত্তর অবয়ববাদী সাহিত্যতত্ত্ব – আনন্দ ঘোষ হাজরা
  • উত্তর সাংগঠনিক চিন্তা - আফজালুল বাসার
  • চিহ্নতত্ত্ব: সাহিত্যের চিহ্ন -অধ্যয়ন – সৈয়দ শাহরিয়ার রহমান
  • দেরিদার অবিনির্মাণ: বিশেষ নির্মাণ নাকি তত্ত্বের অশরীরি নির্মিতি? - মাসুদুজ্জামান
  • পাঠককেন্দ্রিক সাহিত্যতত্ত্ব – বেগম আকতার কামাল
  • উত্তর-আধুনিকতা ও তৃতীয় বিশ্ব – পবিত্র সরকার
  • উত্তর-আধুনিক কাব্যভাষার সূত্রানুসন্ধান – এজাজ ইউসুফী
  • উত্তরাধুনিকতার উত্তরকাল – সালাহউদ্দীন আইয়ুব
  • নব্য ইতিহাসবাদী সাহিত্যতত্ত্ব – রাশিদ আশকারী
  • পরিশিষ্ট -১ ও ২
  • আধুনিকতাবাদী শিল্প ও সাহিত্য আন্দোলন: কতিপয় ইশতেহার – গোলাম ফারুক খান
সাহিত্য প্রসঙ্গে আধুনিক মনোভঙ্গি তথা দার্শনিক অনুধাবন বা মতবাদ বা ইজম বা  উপলব্ধিগুলো আলোচিত হয়েছে প্রবন্ধগুলোতে। সমকালে শিল্পের যে প্রকরণগুলো মানুষকে ভাবিয়ে তুলেছে এই বইয়ের প্রবন্ধগুলো সেসবের স্বরূপসন্ধানী। বিশিষ্ট শিক্ষক, সাহিত্যিক, আলোচক, চিন্তক, দার্শনিক, প্রাবন্ধিকগণ রচনাগুলোর লেখক। প্রত্যেকেই স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রখ্যাত, বিখ্যাত এবং বহুল প্রশংসিত।

গত একশত বৎসরে যে সব ভাবনা বা ইজম শিল্প সাহিত্য জগতে নতুন দিক উন্মোচন করেছে, সমালোচকদের দিয়েছে নতুন ভাবনার দিশা, পরিবর্তিত প্রতিবেশের প্রতিফলন সাহিত্যে যেভাবে পড়েছে, সাহিত্যের ব্যাখ্যায় যেভাবে পথ দেখিয়েছে তার অনুধাবন এই বই পাঠে সহজ হবে। মনে রাখতে হবে যে, কোন বই বা কোন পাঠ সম্পূর্ণ নয়। অতএব সাহিত্যতত্ত্ব বুঝতে শুধুমাত্র এই বই পড়াটাই যথেষ্ট নয়। এই বই বরং বিনয়ী পাঠককে আরও কয়েকটি বই পড়ার প্রেরণা যোগাবে। তিনি রেনেসাঁস এর পথ ধরে আসা মার্কসবাদ, অস্তিত্ববাদ, ইম্পিরিয়ালিজম, উপনিবেশবাদ, নারীবাদ, অবয়ববাদ, চিহ্নতত্ত্ব, উত্তরাধুনিকতা ইত্যাদি প্রসঙ্গে বিদগ্ধজনদের আলোচনা পড়তে পড়তে নিজের অজ্ঞতা বুঝতে পারবেন। প্রশ্নের পর প্রশ্ন তার মননজগতকে জর্জরিত করে তুলবে। তিনি সাহিত্যতত্ত্ব বিষয়ে আরও বই পড়তে চাইবেন। তার আত্মাহংকার বিপন্ন হবে। তিনি বুঝতে পারবেন, সাহিত্যের বিভিন্ন দিক নিয়ে তার মন্তব্য করার যোগ্যতা রয়েছে কী না। যদি তিনি নিজে কোন সাহিত্যতত্ত্ব উদ্ভাবন করে থাকেন, তাহলে তারও মূল্যমান এই বই পাঠ শেষে প্রাপ্ত অভিজ্ঞান দিয়ে বিচার করা সম্ভব।

আলোচিত দার্শনিক প্রসঙ্গগুলো প্রতীচ্যের অর্থাৎ ইউরোপ আমেরিকার। সেসব দেশের দার্শনিক, সমালোচক, পাঠক কর্তৃক কল্পিত, চিন্তিত সাহিত্যিক উপাদান, ইজম বা সমস্যাগুলো গত একশত বৎসরব্যাপী আলোচিত, চর্চিত, প্রচলিত হয়ে আসছে। এই বহুল উচ্চারিত দার্শনিক অনুধ্যানগুলো আলোচনা করেছেন প্রাচ্যের তথা বাংলাদেশের প্রাজ্ঞ বিদগ্ধ ব্যক্তিগণ। প্রাচ্যের সাহিত্যতত্ত্বের আলোচনা এখানে বিবেচ্য নয়। এমনকি কোন একটি প্রসঙ্গে পাশ্চাত্যের কারও লেখার অনুবাদও নেই। অর্থাৎ বইটি সম্পূর্ণরূপে বিদেশী তত্ত্ব-দর্শন-ইজমের দেশীয় অনুধাবন উপলব্ধির সংকলন। প্রসঙ্গগুলো গত শত বৎসরে অসংখ্যবার আলোচনা করা হয়েছে। পক্ষে-বিপক্ষে হয়েছে ব্যাপক সমালোচনা। ইউরোপ আমেরিকার গন্ডি পেরিয়ে সেই আলোচনা সভায় যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশী তাত্ত্বিকগণ। বিভিন্ন মতাদর্শ নিজেরা যেভাবে আত্মস্থ করেছেন, যেভাবে বুঝেছেন তা পাঠকের সামনে নিজের মত করে উপস্থাপন করেছেন।

লেখক উপনিবেশবাদের অনিবার্য অভিঘাত হিসেবে সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় আধিপত্যবাদের কথা জানেন। সেকথা ভূমিকাংশের বিস্তৃত আলোচনায় অকপটে প্রকাশ করেন। তিনি মনে করেন আমাদের নিজস্ব সাহিত্যতত্ত্ব নেই, তা উদ্ভাবন বা বিনির্মাণের জন্য প্রতীচ্য সাহিত্যতত্ত্ব জানা প্রয়োজন।
… উত্তর উপনিবেশবাদী সাহিত্যতত্ত্ব দিয়ে আমরা তদন্ত করতে পারি উপনিবেশ ও উপনিবেশোত্তর সকল রচনাকে। বর্তমানের নব্যউপনিবেশবাদের ভাবাদর্শে সাহিত্য-সংস্কৃতি রচিত হচ্ছে কি-না তাও অনুধাবনের দৃষ্টিকোণ তৈরি করতে পারি। হয়ত বা এভাবে গড়ে তুলতে পারি আমাদের নিজস্ব এক সাহিত্যতত্ত্ব। গ্রন্থভুক্ত লেখাগুলিতে তাই তত্ত্ব ব্যাখ্যায় প্রয়োগ দেখানো হয়েছে বাংলা সাহিত্য থেকে। পৃষ্ঠা- উনত্রিশ
একাডেমিশিয়ান লেখক প্রতীচ্য সাহিত্য সমালোচনা তত্ত্বের এই মূল্যবান প্রবন্ধগুলো সংগ্রহ করেছেন বিভিন্ন লিটল ম্যাগাজিন থেকে। সেকথা ভূমিকায় স্বীকার করেছেন। নাম উল্লেখ করে উলুখাগড়া, লিরিক, একবিংশ, প্রান্ত, নিসর্গ প্রভৃতি পত্রিকার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। এসব পত্রিকায় সাহিত্যসমালোচনা তত্ত্ব নিয়ে প্রকাশিত ক্রোড়পত্র, বিশেষ সংখ্যা, নিয়মিত সংখ্যা ইত্যাদি থেকে প্রবন্ধগুলো নিয়েছেন। উত্তর আধুনিকতার চর্চা যারা করে, সেসব পত্রিকার নাম তিনি প্রাসঙ্গিক বিবেচনায় স্মরণ করেন।

বইয়ের পৃষ্ঠাসংখ্যা পাঁচশত চার। অর্থাৎ অবয়বে বেশ মোটা। সাদা কাগজে ঝকঝকে ছাপা বইয়ে ফন্টের আকার যথাযথ রয়েছে। শক্ত মলাট বাইন্ডিং হওয়ায় বইটি দীর্ঘস্থায়ী হবে। সারা দেশের সাহিত্যমোদী ব্যক্তিগণ সাহিত্য রচনা করতে গিয়ে এবং অন্যের সৃজন করা সাহিত্য-শিল্প সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে অনেক সময় অস্বস্তিতে ভোগেন। তারা এই বই পড়তে পারেন। সাহিত্যের বিভিন্ন প্রকারের দৃষ্টিকোণ, ক্ষেত্র, ব্যাখ্যা তাদেরকে অভিভূত করবে, সাহিত্যিকগণের মনন ও সৃজনসক্ষমতা, সাহিত্য সমালোচনা তথা চিন্তাচর্চার বিশাল দিগন্ত সম্পর্কে সচেতন করবে। শিল্প সাহিত্য সম্পর্কে বিভিন্ন পণ্ডিতের নানাবিধ মতবাদ তার চেতনায় ক্রমান্বয়ে এক গভীর অনুধাবনের বোধ তৈরি করবে। এটা ঠিক যে, এই বই নতুন পাঠকদের জন্য নয়। তারপরও এর পাঠ নবীন প্রবীণ সকলের চিন্তাজগতকে সমৃদ্ধ করবে। বাড়িয়ে দেবে আরও বই পড়ার প্রবল তৃষ্ণা। পরিচিত করে তুলবে সাহিত্য সমালোচনার বিশালতা বা সীমাবদ্ধতার সাথে।

~o~o~o~o~o~o~o~o~o~o~

বিশ শতকের প্রতীচ্য সাহিত্য ও সমালোচনাতত্ত্ব
সংকলন, সম্পাদনা ও ভূমিকাঃ বেগম আকতার কামাল


প্রচ্ছদঃ সব্যসাচী হাজরা
প্রকাশকালঃ ২০১৪
প্রকাশকঃ অবসর, ঢাকা
পৃষ্ঠাসংখ্যাঃ ৫০৪
মূল্যঃ ৫৫০.০০ টাকা
ISBN: 978-984-8797-04-4

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করার পূর্বে মন্তব্যর নীতিমালা সম্পাদকের স্বীকারোক্তি পাঠ আবশ্যক। ইচ্ছে হলে ই-মেইল করুন।